অ্যাপল বাজারে রাজত্ব করছে মূলত আইফোনের জোরে

অ্যাপল বাজারে রাজত্ব করছে মূলত আইফোনের জোরে।

তবে আইফোনের পাশাপাশি আরও কয়েকটি পণ্য নিয়ে কাজ করতে চায় অ্যাপল। তাই আগামী দশকে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করবে তারা।

সেলফ ড্রাইভিং কার, সাবস্ক্রিপশন সার্ভিস ও স্মার্টগ্লাসের মাধ্যমে বাজার ধরে রাখতে ইতোমধ্যেই কাজ শুরু করেছে টেক জায়ান্টটি। আইফোন, আইপ্যাড, ম্যাকবুক, ম্যাক প্রো, অ্যাপলওয়াচ ও এয়ারপড বাদে যেসব পণ্য বা সেবা আনবে তা নিয়েই সাজানো হলো ফিচারটি।

স্মার্ট গ্লাস

একটা সময় আসবে যখন ফোনের বিকল্প চলে আসবে। এমন পরিস্থিতি তৈরি হলে অ্যাপলও আর আইফোন বানাবে না। আইফোনের শূন্যতা তারা পূরণ করতে পারে স্মার্ট গ্লাসের মাধ্যমে।

অ্যাপলের স্মার্ট গ্লাস বাজারে আসবে ২০২২ সালে। টেক জায়ান্টটির সিনিয়র ম্যানেজারদের আশা, এক দশকের মধ্যেই আইফোনের বিকল্প হয়ে উঠবে স্মার্ট গ্লাস। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হেডসেট আসবে ২০২৩ সালে। স্মার্টগ্লাস বা হেডসেট কোনোটাই এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

তবে অক্টোবরে গোপন এক বৈঠকে ডিভাইস দুটির ব্যাপারে কর্মীদের বিস্তারিত জানানো হয়।

ওই মিটিংয়ে অংশ নেওয়া দুই কর্মী জানিয়েছেন, ২০২২ সালে ফেইসবুকের অকুলাস কোয়েস্টের মতো ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হেডসেট আনবে তারা। ডিভাইসটিতে থাকবে হাই রেজুলেশনের ডিসপ্লে, ক্যামেরা। এতে আশেপাশের জায়গা ম্যাপিংয়ের প্রযুক্তিও থাকবে।

আরেকটি ডিভাইস আসবে ২০২৩ সালে। ডিভাইসটি দেখতে হবে সানগ্লাসের মতো। এর পুরু ফ্রেমে থাকবে ব্যাটারি ও প্রসেসর। সারাদিন ধরেই গ্লাসটি ব্যবহার করা যাবে। আইফোনের বিকল্প হয়ে উঠবে ডিভাইসটি।

সাবস্ক্রিপশন সেবা

অ্যাপল মিউজিক দিয়ে সাবস্ক্রিপশন সেবার জগতে প্রবেশ করে অ্যাপল। পরে অ্যাপল নিউজ প্লাস, গেইমিং সার্ভিস অ্যাপল আর্কেড আনে তারা। চলতি মাস থেকে চালু করে অ্যাপল টিভি প্লাস। এতোগুলো সেবা থাকায় সাবস্ক্রিপশন সার্ভিসের বাজারেও বেশ দপটের সঙ্গে রাজত্ব করছে অ্যাপল।

ভবিষ্যতে তিনটি সাবস্ক্রিপশন সার্ভিস একত্র করে সাবস্ক্রিপশন বান্ডেল আনার কথা বিবেচনা করছে তারা। এই বান্ডেলে থাকবে অ্যাপল মিউজিক, অ্যাপল টিভি প্লাস ও অ্যাপল নিউজ প্লাস। বাদ পড়বে গেইম সাস্ক্রিপশন সেবা অ্যাপল আর্কেড। আগামী বছরই নতুন বান্ডেল সার্ভিসের ঘোষণা আসতে পারে।

অ্যাপল মিউজিক চালু হয় ২০১৫ সালে। বাকি সেবাগুলো অ্যাপল চালু করে ২০১৯ সালে।

স্বয়ংক্রিয় গাড়ি

টেক জায়ান্ট অ্যাপল গত পাঁচ বছর ধরেই স্বয়ংক্রিয় গাড়ি তৈরির প্রকল্প ‘প্রোজেক্ট টাইটান’ নিয়ে কাজ করছে। এ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত আছেন হাজার হাজার কর্মী।

প্রজেক্ট টাইটান সম্পর্কে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানালেও স্বয়ংক্রিয় গাড়ি তৈরির খাতে যে তারা অবদান রাখতে যাচ্ছে তা নিশ্চিত করেছে কিউপারটিনোভিত্তিক কোম্পানিটি। সে সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছে, এটাই হতে যাচ্ছে সবচেয়ে উচ্চাভিলাষী মেশিন লার্নিং প্রকল্প।

ভবিষ্যতে প্রকল্পটি বাস্তব রূপ পেলে রাস্তায় দেখা মিলবে অ্যাপল কারের।

প্রযুক্তির পথ ও জয়গানের সব খবর তুলে এনে জীবন সহজ করছে ITSohor। দেশ ও বিদেশের প্রযুক্তির সর্বশেষ সংবাদ সবার আগে জানতে ভিজিট করুনঃ আইটি শহরে

আপনার মতামত, লাইক ও কমেন্টের সঙ্গে থাকুন আমাদের আইটি শহরের ফেসবুক ফ্যান পেজে

44 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

HTML Snippets Powered By : XYZScripts.com